বিকাশ অ্যাপের সুবিধা

মোবাইল ওয়ালেট হিসেবে বিকাশ বর্তমানে বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয়।  বিকাশ টাকা পাঠানো এবং গ্রহণ করা খুব সহজ করে দিয়েছে। আপনি এখন বিকাশের সাথে বেশিরভাগ জায়গায় টাকা লেনদেন করতে পারবেন। তাছাড়া বিকাশ এজেন্টরাও বাংলাদেশের প্রতিটি অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। তাই লেনদেনে একটি পরিচিত নাম হয়ে উঠেছে বিকাশ।

কিন্তু বিকাশ ব্যবহারকারীদের একটি বড় অংশ শুধুমাত্র টাকা পাঠানো এবং গ্রহণ করার জন্য বিকাশ ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু বিকাশ আরও অনেক ধরনের সেবা নিয়ে এসেছে। আপনি শুধুমাত্র কোড ডায়াল করে বিকাশ ব্যবহার করলে এই পরিষেবাগুলির বেশিরভাগই আপনার নাগালের বাইরে থাকবে।  পরবর্তী প্রজন্মের মোবাইল ওয়ালেট হিসেবে বিকাশ অনেক আগেই অনেক ফিচার সমৃদ্ধ অ্যাপ চালু করেছে। তারা নিয়মিত এই অ্যাপে নতুন নতুন ফিচার যোগ করছে।

বিকাশ কোড *247# ডায়াল করে যেকোনো ফোন থেকে টাকা পাঠানো বা নেওয়া, মোবাইল রিচার্জ, পেমেন্ট করা যাবে। কিন্তু অ্যাপ ব্যবহার করে এগুলো ছাড়াও অনেক কিছু করা যায়। এর জন্য আপনার একটি স্মার্টফোন লাগবে। আজকের পোস্টে আমরা বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য এবং পরিষেবা সম্পর্কে আলোচনা করব যা শুধুমাত্র বিকাশ অ্যাপে উপলব্ধ।  সুতরাং, আপনার যদি একটি স্মার্টফোন থাকে তবে আপনি বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে অনেক লেনদেন সহজ করতে পারবেন।

1.লেনদেনের ইতিহাস

আপনি কোড ডায়াল করে লেনদেনের ইতিহাসও পরীক্ষা করতে পারেন। কিন্তু এর বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আপনি বিকাশ অ্যাপ থেকে সুন্দর লেনদেনের বিবরণ এবং ইতিহাস পাবেন।  অ্যাপটি আপনাকে এক মাসে কত লেনদেন করেছেন, মাসের শুরুতে এবং শেষে ব্যালেন্স, কোন সেক্টরে মোট কত লেনদেন করেছে তার সমস্ত হিসাব দিতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ বিনিময় একাউন্ট খোলার নিয়ম

যারা ব্যবসায় বিকাশ ব্যবহার করেন তাদের কাছে লেনদেনের বিবরণ বা বিবৃতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যে কোনো ব্যবহারকারীর এই বিবৃতি প্রয়োজন হতে পারে। তাই অ্যাপটির এই ফিচারটি খুবই উপকারী। বিকাশ অ্যাপের উপরের ডানদিকের কোণায় বিকাশ লোগোতে ট্যাপ করলে স্টেটমেন্ট অপশন দেখতে পাবেন। আপনি ‘সীমা’ অপশন থেকে আপনার মাসিক এবং দৈনিক সীমা কতটা ব্যবহার করেছেন তাও দেখতে পারেন।

2. বিকাশ থেকে ব্যাংক ট্রান্সফার

আপনি ক্যাশ আউটের চেয়ে অনেক কম খরচে আপনার বিকাশ থেকে সরাসরি আপনার ব্যাংক একাউন্টে টাকা ট্রান্সফার করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে বিকাশের সাথে আপনার ব্যাংক একাউন্ট লিঙ্ক করতে হবে। এর পরে আপনি আপনার ব্যাংক একাউন্টে দিনরাত 24 ঘন্টা অবিলম্বে টাকা পাঠাতে পারবেন।  যাইহোক, এই পদ্ধতি ব্যবহার করে টাকা পাঠাতে, আপনার ব্যাংক বিকাশ তালিকায় থাকতে হবে।  আপনি বিকাশ থেকে সমর্থিত ব্যাংকগুলির তালিকা পরীক্ষা করতে পারেন।

কিন্তু কিছুদিন আগে বিকাশ ভিসা কার্ডে টাকা ট্রান্সফার সুবিধা চালু করেছে। অর্থাৎ, আপনার যে ব্যাংকেই থাকুক না কেন, আপনার কাছে ভিসা কার্ড থাকলে, আপনি কার্ডের মাধ্যমে ব্যাংকে টাকা পাঠাতে পারবেন।  তবে এই পদ্ধতিতে টাকা যেতে 3 দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।  আপনি অ্যাপে ‘বিকাশ টু ব্যাংক’ থেকে এই অপশনটি ব্যবহার করতে পারবেন।

3.সঞ্চয়

টাকা জমা দেওয়ার জন্য আমরা অনেকেই ব্যাংকে গিয়ে সেভিংস একাউন্ট খুলি। এই একাউন্টগুলি থেকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতি মাসে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা করা যেতে পারে। এর জন্য ব্যাংকে গিয়ে দীর্ঘ ফর্ম পূরণ করতে হবে এবং বিভিন্ন তথ্য প্রদান করতে হবে যা খুবই সময়সাপেক্ষ। তবে বিকাশ অ্যাপ থেকে আপনি কয়েকটি অপশন নির্বাচন করে সহজেই আপনার নিজের সেভিংস একাউন্ট খুলতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ বিকাশ পিন পরিবর্তন করার নিয়ম | বিকাশের পিন পরিবর্তন

এই ক্ষেত্রে, আপনি 2 থেকে 4 বছরের জন্য প্রতি মাসে 500 টাকা জমা দিতে পারবেন। বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টাকা জমা হবে। সাধারণ ব্যাংকের মতো লভ্যাংশও পাবেন।  বর্তমানে বিকাশ দুই ধরনের সেভিংস একাউন্ট অফার করে, প্রচলিত এবং ইসলামিক।  ডিপিএস একটি খুব দরকারী বৈশিষ্ট্য।  আপনি বিকাশ অ্যাপ খুললে ‘সঞ্চয়’ নামক অপশনটি দেখতে পাবেন।

4. লোন

বিকাশের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো ব্যক্তিগত লোন। বিকাশ আপনার লেনদেনের উপর নির্ভর করে আপনাকে টাকা ধার দেবে।  তবে এই বৈশিষ্ট্যটি সবার জন্য নয়। আপনাকে বিকাশের নিয়মিত ব্যবহারকারী হতে হবে এবং নিয়মিত প্রচুর পরিমাণে লেনদেন করতে হবে। অ্যাপটি খুলুন এবং আপনি লোনের অপশন থেকে লোনের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন কিনা তা পরীক্ষা করুন। বিকাশ সিটি ব্যাংক থেকে লোনেরর মাধ্যমে এই সেবা প্রদান করে থাকে।  আপনি লোন পাবেন কিনা বা কতটা পাবেন তা তারা ঠিক করে।

5.রেমিটেন্স

আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হন তবে এই অপশনটি খুব দরকারী। আমাদের দেশের বেশিরভাগ ফ্রিল্যান্সার পাইওনিয়ারের মাধ্যমে তাদের টাকা  নিয়ে আসে। পাইওনিয়ার থেকে ব্যাংকে টাকা পেতে কিছুটা সময় লাগে। যাইহোক, পাইওনিয়ারের সাথে গাঁটছড়া বেঁধে, বিকাশ তাৎক্ষণিক টাকা আনার ব্যবস্থা চালু করেছে। এই বৈশিষ্ট্যটি পেতে আপনাকে বিকাশ রেমিট্যান্স বিকল্পের আগে আপনার পাইওনিয়ার একাউন্ট লিঙ্ক করতে হবে।

6.QR কোড দিয়ে লেনদেন

বিকাশের কিউআর ফিচার সম্পর্কে অনেকেই জানেন না।  বিকাশ QR কোডের মাধ্যমে লেনদেন প্রদান করেছে। বিকাশ অ্যাপ থেকেই ক্যামেরার মাধ্যমে QR কোড থেকে নম্বর নিতে পারবেন।  ভুল নম্বরের কোন চিন্তা নেই এবং দ্রুত লেনদেন সম্ভব।  বিকাশ তাদের অ্যাপে প্রত্যেকের জন্য আলাদা QR রেখেছে।  উপরের বাম কোণায় আপনার প্রোফাইল ছবিতে আলতো চাপ দিয়ে আপনি আপনার QR পেতে পারেন। আপনি নম্বরের পরিবর্তে এই QR কোডটি যে কাউকে পাঠাতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ নগদ কাস্টমার কেয়ার নাম্বার ২০২২

7. প্রিয় নম্বর

প্রিয় নাম্বার বিকাশের একটি নতুন সেবা। আপনি যদি 100+ টাকা পাঠাতে চান তাহলে আপনার থেকে  বিকাশ 5 টাকা চার্জ নিবে। আপনি আপনার প্রিয় নম্বরের তালিকায় 5টি নম্বর রাখতে পারবেন যাদেরকে আপনি বিনামূল্যে টাকা পাঠাতে পারবেন।  আপনি এই ফিচারটি ‘Send Money’ অপশনে পাবেন। এখান থেকে আপনি প্রতি মাসে 5টি নম্বর পছন্দের নম্বর হিসেবে রাখতে পারবেন যার কাছে আপনি প্রতি মাসে 25000 টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে পাঠাতে পারবেন।

8.প্রিয় এজেন্ট

বিকাশ প্রিয় নম্বরের মতো কম খরচে ক্যাশ আউট সুবিধা প্রদানের জন্য পছন্দের এজেন্ট নম্বর নির্বাচন করার সুবিধাও দিচ্ছে।  আপনি একজন এজেন্ট থেকে প্রতি মাসে 14.90 টাকা ক্যাশ আউট করতে পারেন। ‘ক্যাশ আউট’ অপশনে গিয়ে আপনি পছন্দের এজেন্ট নম্বর সেট বা মুছে ফেলতে পারবেন।

অ্যাপের এই বৈশিষ্ট্যগুলি আপনার বিকাশের অভিজ্ঞতাকে সমৃদ্ধ করবে।  তাই বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করতে চাইলে প্লেস্টোর বা অ্যাপল অ্যাপ স্টোর থেকে আজই ইন্সটল করে নিতে পারেন।

শেষ কথা

উপরে বিকাশ অ্যাপের সুবিধা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন। বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করলে অনেক সুবিধাই পাওয়া যায়। কেউ কিছু বুঝতে না পারলে কমেন্ট বক্সে জানাবেন। ধন্যবাদ সবাইকে। 

Visited 10 times, 1 visit(s) today